Beta

পাখিভ্যানের নিচে কোটি টাকার সোনা!

১২ আগস্ট ২০১৭, ১৯:১৪

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় আড়াই কেজি সোনার অলংকারসহ একজনকে আটক করেছে বিজিবি। ছবি : এনটিভি

যানবাহনটি রিকশাভ্যান নামেই পরিচিত। স্থানীয়ভাবে ‘পাখিভ্যান’ বলা হয়। কারণ তা ব্যাটারিচালিত। পাখিভ্যানে করে নেওয়া হচ্ছিল প্রায় আড়াই কেজি সোনার অলংকার! যার দাম এক কোটি টাকারও বেশি!

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় ওই পাখিভ্যান আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। আজ শনিবার উপজেলার উথলী নামক এলাকায় ওই পাখিভ্যানের পাশাপাশি এর চালক সেন্টু শেখকে আটক করা হয়। ওই পাখিভ্যানের নিচে অভিনব কায়দায় চারটি বাক্সে লুকানো ছিল এসব স্বর্ণালংকার।

আটক সেন্টু শেখ দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা। বিজিবির চুয়াডাঙ্গা ৬ ব্যাটালিয়ন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এসব তথ্য জানায়। 

বিজিবির কর্মকর্তারা জানান, সোনার বড় ধরনের একটি চালান দামুড়হুদা থেকে জীবননগর হয়ে ঢাকায় পাচার করা হবে এমন একটি তথ্য তাঁদের কাছে ছিল। এরই ভিত্তিতে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা-৬ ব্যাটালিয়নের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর লুৎফুল কবীরের নেতৃত্বে দর্শনা ও নিমতলা বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা যৌথভাবে অভিযান চালায়। তাঁরা জীবননগর উপজেলার মোল্লাবাড়ী হঠাৎপাড়ায় অভিযান চালিয়ে একটি পাখিভ্যান আটক করে। পরে ভ্যানটি তল্লাশি করে ভ্যানের নিচে অভিনব কায়দায় রাখা চারটি কৌটার সন্ধান পান কর্মকর্তারা। ওই চারটি কৌটায় ছিল দুই কেজি ৪৪২ গ্রাম (২১০ ভরি) সোনার গহনা। 

বিজিবি জানিয়েছে, উদ্ধার হওয়া সোনার মূল্য এক কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

আটক ভ্যানচালক সেন্টু শেখ জানান, দামুড়হুদা বাসস্ট্যান্ড থেকে দুজন তরুণ তাঁর সঙ্গে ৫০০ টাকার চুক্তিতে তাদের পাখিভ্যানটি জীবননগরে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলেন। পাখিভ্যানটি নিয়ে জীবননগরে আসার সময় বিজিবি তা আটক করে। সেন্টু শেখ জানান, ওই তরুণদের তিনি চেনেন না।

Advertisement
0.82874703407288